Skip to content

একটি কাল্পনিক Love Story (শেষ পর্ব)

নভেম্বর 21, 2008
পরের দিন …

ইভা মেলায় এলে, আবির কে কল করে বলে আমি পার্কে আছি তবে আজ আমি একা সাথে শামীমা বা অন্য কেউ নেই।
আবির ভাবছে সাথে কি নাঈম কে নিয়ে যাবে নাকি একাই যাবে, একা গেলে কি ইভার সাথে কথা বলতে পারবে শেষে নাঈম কে ডাকলো চল নাঈম পার্কের ওদিক থেকে ঘুরে আসি।
নাঈম : কেন পার্কের ওদিকে কেন, ইভা এসেছে নাকি?
আবির : হ্যা ইভা এসেছে।
নাঈম : কাল তো কিছুই বলতে পারলিনা , আজ ও কি তাই করবি নাকি ? যদি তাই করিছ তবে আর গিয়ে লাভ নেই । কাল তো ইভা কে গোলাপ গুলো গিফট্ করছি আজ তো কি গিফট্ করবে ইভা বলেছে কিছু?
আবির : না কিছুই বলেনি তবে কি যেন গিফট্ করবে বলে বলেছে কাল রাতে।
নাঈম : রাতে মানে! রাতেও তোদের কথা হয়? বলনা প্লিজ দোস্ত রাতে তোদের কি কথা হয়।
আবির : নাঈম , পাকনামিটা আর বাদ দিতে পারলিনা , রাতে আমাদের কি কথা হয় তা শুনে তোর কি লাভ বলতো আমাকে। এই এসব কথা বাদ দে পার্কের সামনে এসে গেছি।
নাঈম : ঠিক আছে দিলাম বাদ , তবে আমাকে না বললে শালা তোর খবর আছে বলো দিলাম । ঔ দেখ তোর জন্য কেমন মন খারাপ করে বসে আছে আমাদের ইভা ম্যডাম।
আবির : হামমমম এসে গেছি , তবে একটু লেট হয়ে গেলো, নাঈমকে নিয়ে আসতে গিয়েই একটু দেরি কিছু মনে করো না ।
ইভা : না না ঠিক আছে।
নাঈম : আবির , শুনলি ইভা তোকে নানা বললো (হা হা  হা )।
ইভা : আমি “নানা” বলিনি আমি বলেছি ।
আবির : এই তোমরা বাদ দিবে এসব কথা ।
ইভা : তারপর বলো কেমন কাটছে তোমাদের দিন কাল ?
আবির : আমার দিন অনেক ভাল কাটছে , আর তোমাকে পাবার পর তো আরে ভালো কাটতেছে এক কথায় জোসসসসসসসসসসসসসস।
নাঈম : হা হা তোমরা তো ভালই আছো , ভালই প্রেম করে বেড়াচ্ছো আমাকে রেখে।
এই বলে সবাই কে হাসিয়ে দিল নাঈম ।
নাঈম : এই তোরা কথা বল আমি তোদের জন্য কিছু হালকা পাতলা খাবার নিয়ে আসি।
আবির : টাকা নিয়ে যা নাঈম ।
নাঈম : না না লাগবে না আমার কাছে আছে , আমার দুই বন্ধু প্রেম করবে আর আমি কিছু খরচ করতে পারবো না এটা কেমন কথা , তোরা কথা বল আমি কিছু নিয়ে আসি।


এখন  শুধু আবির আর ইভা বসে আছে পার্কের এক কর্ণারে নাঈম চলে গেলো। আবির কিছুই বলছে না , ইভা ও কিছু বলছে না , দুজনই চুপচাপ। হঠাৎ আবির বললো কি ইভা চুপ করে আছো কেন। কিছু বলো ।
ইভা : তুমি শুরু করো ।
আবির : কাল তো কিছুই বলতে পারলে না , শামিমা আর ঈশা ছিলো বলে আজ তো কেউ নেই । আজ বলো যা মন চায় বলো ।
ইভা :  তোমাকে নিয়ে আমি স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছি, তোমাকে আমার অনেক কাছে পেতে ইচ্ছে করে ।
আবির : আমি ও তোমাকে অনেক ভালবাসি, তোমাকে সবসময় মিস করি, তবে আমার অনেক ভয় হয় তুমি যদি আমাকে ভুলে যাও তবে আমার কি হবে ।
ইভা : আমি তোমাকে কখনোই ভুলবো না , আমি এই প্রথম তোমাকে ভালবেসেছি আর সারা জীবন তোমাকেই ভালবাসবো।
তবে আমার ভয় হয়, তুমি ইতালীতে জন্মগ্রহন করেছো, তুমি বড় হয়েছো এই দেশে তোমার মন যদি পরিবর্তন হয়ে যায়। তুমি আমাকে কথা দাও কখনো আমাকে ছেড়ে যাবেনা ।
আবির : ঠিক আছে কথা দিলাম , আমি তোমাকে ছেড়ে কোথাও যাবো না আমি সবসময় তোমার শুধুই তোমার । 
এবার তোমাকে একটু আদর করে দেই?
ইভা : কেন না, আমি তো চাই শুধু তোমার ভালবাসা তোমার আদর।
আবির : এসো তাহলে আদর করে দেই , দেই আমার ভালবাসা।

কিছুক্ষন পরে নাঈম এসে দেখতে ছিল ওদের প্রেম ভালবাসা পরে ওদের আরেকটু টাইম দেবার জন্য ইচ্ছে করেই পার্কের আরেক পাশে বসে থাকে। 
এবার নাঈম কে কল করে , কি হয়েছে কি আপনাদের প্রেম ভালবাসা। আমি কি এখন আসতে পারি?
আবির : শালা তোকে আসতে মানা করেছে কে? আস তাড়াতাড়ি আস কি এনেছিস আমাদের জন্য।


ওরা তিনজন মিলে সন্ধা বেলা বেশ মজা করেই কাটিয়ে দিল। পরে ইভা উঠতে চাইলে ইভার বাসা পর্যন্ত দিয়ে আসে আবির ও নাঈম।


এভাবে দিনের পর দিন চলতে থাকে এদের প্রেম ভালবাসা, অনেক আসি আনন্দের মধ্য দিয়ে কাটতে থাকে আবির আর ইভার জীবন। আস্তে আস্তে বাড়তে থাকে ওদের ভালবাসার গভীরতা, একজন অপর জন কে ছাড়া কিছুই ভাবতে পারে না, সময় পেলেই চলে ফোনে প্রেমালাপ। আর হাসি হাসি সব মিলিয়ে অনেক মজা করেই কেটে যাচ্ছিল দিন গুলো ওদের।


প্রায় তিন মাস পরে একদিন……

হ্যলো ইভা ,
ইভা : হ্যা নাঈম বলো কি হয়েছে , তুমি এমন করছো কেন, কেমন আছো তোমারা , কবে আসবে?
নাঈম : একটা খারাপ খবর আছে ……
ইভা : নাঈম , কি হয়েছে তুমি এমন করছো কেন ? বলো কি হয়েছে?
নাঈম : I am sorry ইভা।  আমরা আবির কে চিনতে ভুল করেছি। 
আমরা ভেনিসে ঘুরতে আসার পর , আবিরের সাথে রিপা নামের একটা মেয়ের সাথে পরিচয় হয়। সেদিন পিয়াচ্ছাতে আবিরের সাথে প্রথম রিপার দেখা হয়, আবির নাকি রিপাকে দেখেই পাগল হয়ে গেছে। তারপর ইচ্ছে করেই রিপার সাথে কথা বলে, ওদের সব কথা ইতালীয়ান ভাষায় রিপা বাংলা তেমন বলতে পারেনা তাই ওরা আমার সামনেও ইতালীয়ান ভাষায় কথা বলে। প্রথমদিন ওদের তেমন কথা হয়নি, আবির রিপাকে দেখার জন্য পরের দিন বিকালেও পিয়াচ্ছাতে দাড়িয়ে ছিল, পরে রিপা আসলে ওরা দুজন একটি বারে গিয়ে আড্ডা দেয়। আমি আবির কে রেখে চলে আসি।


এই কথা গুলো কান্না কান্না স্বরে বলতেছিল ইভাকে নাঈম ।

ইভার মন ছিল একটু ভিন্ন রকম , ও মনটাকে আরো শক্ত করলো , নাঈম কে সান্তনা দিতে লাগলো । তারপর ইভা আর সহ্য করতে না পেরে নাঈম কে বললো নাঈম তুমি কোন চিন্তা করো না , আমি আবিরের সাথে কথা বলে দেখছি ,
আমি তোমাকে পরে ফোনে জানাবো। ঠিক আছে ভাল থাকে পরে কথা হবে।

ইভা ফোনটা রাখার পর আর চোখের পানি থামিয়ে রাখতে পারলো না, দু চোখ দিয়ে এমনিতেই অশ্রু ঝরতে লাগলো । তারপর ওর রুমে গিয়ে একা একা দরজা বন্ধ করে , কান্না করতে লাগলো ।


সব কষ্টকে চাপা দিয়ে আবির কে ফোন দেয় ইভা, আবিরের সাথে এমন ভাবে কথা বলতে লাগলো যেন ইভা আবির আর রিপার ব্যাপারে কিছুই জানে না।


ইভা : হ্যল্লো আবির, আবির কেমন আছো?
আবির : হ্যা , ভাল আমি ভাল আছি , তুমি কেমন আছো।
ইভা : অনেক অনেক ভাল আছি, কেমন ঘুরতেছো ভেনিসে? আমাকে তো নিলে না সাথে ।
আবির : এই তোমাকে আমি বলেছিলাম না যে চলো আমাদের সাথে ঘুরতে । তুমিই তো আসতে চাইলেনা ।
ইভা : যাক বাদ দাও , মজা করলাম । তারপর বলো কবে আসছো এখানে।
আবির : আসতে কিছু দিন দেরি হবে।
ইভা : দেরি হবে কেন? তুমি না যাবার সময় বললে যে তিন দিন থেকেই চলে আসবে আর এখন বলেছো দিরি হবে।
আবির : হ্যা বলেছিলাম তো কিন্তু মামা এখন আর আসতে দিতে চাইছেন না। তাই ভাবছি পনেন দিন এখানেই থাকবো।
ইভা : আমার সাথে দেখা না করে তুমি ওখানে পনের দিন থাকতে পারবে?
আবির : ইভা , কত দিন পর ভেনিসে এলাম কয়েকটা দিন মজা করবো আর তুমি কোন চিন্তা করো না । তোমার সাথে তো কথা হবেই।
ইভা : তুমি দুদিন হয়েছে ওখানে গিয়েছো এর মাঝে আমাকে কয়বার কল করেছো বলো তো ? তুমি কি এতোই ব্যস্ত যে কল করার টাইম পাওনা।
আবির শোন , আমি তোমাকে অনেক অনেক ভালবাসি, তোমাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখি, তুমি এমন কিছু করবে না যাতে আমার কষ্ট হয়। ঠিক আছে , আমি এখন ফোনটা রাখি , পরে আবার ফোন দিবো।
ভাল থেকে , সাবধানে চলাফেরা করো।

ইভার ফোনের পর আবির কিছুটা টের পায়, ও মনে মনে ভাবে হয়তো ইভা কিছুটা জানতে পেরেছে নাঈম হয়তো ইভাকে কিছু বলেছে। তবে এ বিষয় নিয়ে একটুও চিন্তা করেনা আবির।

ইভার সাথে কথা বলার কিছুক্ষন পরেই রিপা কে কল করে আবির। বলে কাল ওরা দুজন ঘুরতে বের হবে। রিপাও রাজি হয়। রিপা ইতালীতে বড় হওয়া মেয়ে , ফ্যামিলীতে কোন বাধা নেই ।

নাঈম কে বলে কাল তুই আমি আর রিপা তিনজন মিলে ঘুরতে বের হবো। আমরা তো ভেনিসের সুন্দর জায়গা গুলো তেমন চিনিনা তাই রিপাকে সাথে নিয়ে বের হবো । কি বলিস?
নাঈম বলে, না , আমার শরীরটা তেমন ভাল  না , আমি কাল সারা দিন তোদের সাথে ঘুরতে পারবো না । কাল আমি ঘুরতে যাচ্ছিনা । তোরা দুজনই যা, আমি অন্যদিন যাবো। কিছু মনে করিস না দোস্ত।

পরের দিন রিপাকে নিয়ে ঘুরতে বের হয় আবির সারাদিন বাহিরে ঘুরে রাত ১০টায় বাসায় ফিরে। কেমন ঘুরেছিস নাঈম জানতে চাইলে,বলে : রিপা অনেক ভাল একটা মেয়ে , স্মাট, দেখতে সুন্দর সবার সাথে চলতে পারে , ইতালীয়ান কালচারাল আর ইভাও ভাল মেয়ে তবে ওর মাঝ থেকে বাংলার কালচারটা এখনো দুর হয়নি। নাঈম তুই নিজেই চিন্তা করে দেখ, আমরা এখন ইতালীতে এখানে কি বাংলা কালচার চলে?
নাঈম চুপকরে শুধু আবিরের কথা গুলো শুনতেছিল ওর কোন কথারই উত্তর দিচ্ছিল না ।

আগে প্রতি ঘন্টায় ঘন্টায় ইভাকে ফোন দিতো , সারাক্ষন শুধু ইভার কথায় চিন্তা করতো, ইভার কথা ছিল আবিরের মুখে মুখে সেই আবির আজ রিপাকে পেয়ে ভুলেই গেছে ইভাকে।

এখন আর ইভাকে তেমন ফোন দেয়না , ইভা যখনই আবির কে কল করে আবিরের মোবাইল কখনো বন্ধ আবার কখনো Number  busy, রাতে এখন আর কথা বলেনা ইভার সাথে , সব সময় শুধু রিপার সাথেই কথা বলে আর ইভাকে মাঝে ফোন করে “এই সেই” বলে বুঝিয়ে দেয় ।

এদিকে ইভার কান্না দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে , ঠিক মতো খাওয়া দাওয়া করে না ,  বার বার শুধু আবিরের পাঠানো ম্যসেজ গুলো পড়ে আর চোখের পানি ঝড়ায় ।
ইভার চোখে পড়ে আবিরের পাঠানো একট গানের অংশ বিশেষ :

এই পৃথিবী আমার তুমি আছো বলো,
মন হারিয়ে যায় তোমার ছোয়া পেলে.
নীল জোসনার মাঝে তুমি সুখ তারা
ভালবাসার মানে তোমার কাছেই ফেরা।

এই রকম অসংখ ম্যসেজ পাঠিয়েছিল আবির ইভাকে, সেই গুলো দেখলে এখন ইভার কষ্ট শুধু বাড়তেই থাকে।


নাঈমের কাছ থেকে সবকিছু জানার পর একদিন আবির কে কল করে ইভা বলে :
ইভা : আবির, এই কি ছিলো তোমান মনে, তুমি এখন আমাকে ভুলে রিপা নামের একটা মেয়েকে নিয়ে দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছো, তুমি কি ভুলে গেছো আমাকে দেওয়া কথা।  (অনেক কথা বলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে ইভা )
আবির : শুনো ইভা, আমি তোমাকেই ভালবাসি এবং সব সময় তোমাকেই ভালবাসবো। আমার উপর বিশ্বাস রাখো।

আবিরের এই কথা গুলো ছিলো শুধুই ইভাকে সান্তনা দেবার জন্য, এখন আর রিপাকে দেখার পর আবিরের আর ইভাকে একটুও ভাল লাগে না । মুখে মুখে শুধু নাঈম আর ইভাকে বলতে এখনো ও ইভাকে ভালবাসে।

প্রায় ২০ দিন পরে আবির ফিরে আসে নাঈম এসেছিল অনেক আগেই, কিন্তু ফিরে আসলে কি হবে আবির এখন আর ইভাকে ভালবাসে না, ইভা কে এখন আর ফোন দেয় না , তবে একটি বারের জন্য ও মুখ খুলে বলেনা যে ও ইভাকে ভালবাসেনা ।


কয়েকদিন পর পরই আবির ভেনিসে গিয়ে দেখে করে আসে রিপার সাথে আর সবসময় তো ফোনে নেটে কথা হচ্ছেই। আবির রিপার ভালবাসা পেয়ে এখন ভুলেই গেছে ইভা নামের এই সাধারন মেয়েটিকে কিন্তু ইভা এখনো আগের মতোই ভালবাসে আবির কে।

তবে আস্তে আস্তে দুরত্ব বাড়তে থাকে আবির আর ইভার ভালবাসার …….

 

Advertisements
No comments yet

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: